সহজেই ওয়েবসাইট লোডিং স্পীড ফাস্ট করবেন কিভাবে?

যারা blogging করেন বা ওয়েবসাইটের সাথে কোন না কোনভাবে জড়িত তারা সবাই জেনে থাকবেন যে, প্রথম এবং প্রধান বিষয়টি হচ্ছে ‘ওয়েবসাইট লোডিং স্পিড’

আপনি যতই SEO করেন। যদি সাইট লোড হতে বেশি সময় নেয় তাহলে আপনার ওয়েবসাইট কখনোই সার্চইঞ্জিনের টপ পজিশনে র‍্যাঙ্ক করবেনা।

তাই, সবার আগে আমাদেরকে Website লোডিং স্পীডের উপর গুরুত্ব দিতে হবে।

আমরা সহজ কিছু স্টেপ মেনে চললেই লোডিং স্পীড অনেক বেশি ফাস্ট করে নিতে পারি।

নিচে আমি স্টেপ বাই স্টেপ বুঝিয়ে দিচ্ছি।

ওয়েবসাইট লোডিং স্পীড ফাস্ট করুন।

১.। দ্রুত গতির হোস্টিং কিনুন।

সবার প্রথমে আমাদের ওয়েবসাইট স্পীড ফাস্ট করার জন্য যা করতে হবে তা হলো একটি ভালো মানের হোস্টিং কেনা।

Host Techmoshai
Web hosting

আপনার হোস্টিং সার্ভিস যদি ভালো না হয়। যদি ধীরগতির হয়। তাহলে আপনি যা কিছুই করেন না কেন, আপনার ওয়েবসাইটকে ফাস্ট করতে পারবেন না।

আর তাই, ওয়েবসাইট লোডিং স্পীড এর কথা আসলে সর্বপ্রথমেই বলতে হয় ভালো মানের হোস্টিং এর কথা।

ক্লাউড হোস্টিং এখন সবচেয়ে জনপ্রিয়। তবে এতে খরচটা বেশি। আপনি যদি মাত্রই সাইট শুরু করে থাকেন তাহলে ভালো মানের শেয়ার হোস্টিং নিতে পারেন।

বর্তমান সময়ে সবচেয়ে ভালো ডোমেইন ও হোস্টিং বিক্রেতা ২টি কোম্পানি গুলো হলো-

আপনি নিঃসন্দেহে তাদের থেকে ডোমেইন হোস্টিং নিতে পারেন। তাদের রিভিউ খুব ভালো। আর কাস্টমার সার্ভিস ও দারুণ।

বিস্তারিত জানতে এ পোস্টটি পড়ুন,

স্বল্পমূল্যে বিভিন্ন লোভনীয় অফার দেখে অনেকেই কম মানের হোস্টিং কিনে থাকেন। যারা বিগেইনার, ওয়েবসাইট সম্পর্কে তেমন কোন ধারণা নেই। তারা এ ভুলটাই সবচেয়ে বেশি করেন।

তাই ভবিষ্যতে সবরকম ঝামেলা এড়াতে বুঝে শুনে হোস্টিং কিনুন।

২.। ভালো মানের হালকা থিম ইউজ করুন।

হোস্টিং কেনার পর পরই আমাদের লক্ষ্য রাখতে হবে একটি ভালো ও সহজ থিম নির্বাচন করা।

ওয়েবসাইট লোডিং স্পীড ফাস্ট করার জন্য ভালো কোয়ালিটির থিমের কোন বিকল্প নেই।

ওয়ার্ডপ্রেসের জন্য সবচেয়ে ভালো কিছু ফ্রি থিম হলো-

ফ্রিতে ইউজ করার পাশাপাশি আপনি কিছু বাড়তি সুবিধার জন্য এগুলোর প্রো ভার্শন কিনে নিতে পারেন। তাহলে আপনি অনেকরকম ফিচারসহ হাইলি কাস্টমাইজ করতে পারবেন।

তবে, যারা থিম কিনে নিবেন তাদের উচিত একটি মাল্টিপারপোজ থিম কিনে নেয়া। যাতে আপনি আপনার ব্লগ সাইট বা বিজনেস সাইট দুটোই ইউজ করতে পারেন।

সে ক্ষেত্রে প্রথম দুটি অর্থাৎ Astra ও Oceanwp আপনার জন্য বেস্ট হবে।

যারা ফ্রী ইউজ করবেন তাদেরকেও এ দুটি থিম আমি হাইলি রিকমেন্ড করবো কেনার জন্য।

আপডেট সব কোডিং ব্যবহার করায় এ থিম গুলো অনেক দ্রুত লোড হয় এবং সবার কাছে অনেক বেশি জনপ্রিয়।

৩.। অবশ্যই CDN ব্যবহার করুন।

CDN হচ্ছে Content Delivery Network.

আমরা হয়তো অনেকেই জানি- যখন আমরা কেউ কোন Website ভিজিট করি তখন তা প্রথমে হোস্টিং সার্ভারে যায় আর সেখান থেকে তথ্য নিয়ে ওয়েবপেজটি আমাদের ফোনে বা পিসিতে লোড হয়।

সহজভাবে বলতে গেলে, আমরা যদি বাংলাদেশ বা ইন্ডিয়া থেকে কোন ওয়েবসাইট ভিজিট করতে চাই আর হোস্টিং সার্ভার যদি আমেরিকায় হয়ে থাকে। তাহলে প্রথমে সে রিকুয়েস্টটা আমেরিকায় যাবে, তারপর আবার তথ্য নিয়ে আমাদের ডিভাইসে ফিরে আসবে।

Internet
Internet service

বিষয়টি ঘটে প্রায় আলোর গতিতে। তারপরেও এতে কয়েক সেকেন্ড সময় লেগে যায়।

CDN সার্ভিস চালু করলে আপনার সাইট যখনি কোন ব্রাউজারে ওপেন হবে, তখনি তা কাছের কোন সার্ভারের কেচ মেমোরি তে সেভ হয়ে থাকবে। ফলে দ্বিতীয়বার যখন কোন ভিসিটর ওয়েবসাইটে আসতে চাইবে মুহূর্তেই তা লোড হয়ে যাবে।

তো বুঝতেই পারছেন ওয়েবসাইট লোডিং স্পীড বাড়ানোর জন্য CDN সার্ভিস কতটা গুরুত্বপূর্ণ।

বর্তমান সময়ে সবচেয়ে জনপ্রিয় CDN সার্ভিস কোম্পানি হল Cloudflare. আর আমি নিজেও এ Website এ ক্লাউডফ্লেয়ার’ ইউজ করছি।

৪.। ছবি কম্প্রেশন চালু করুন।

আমরা আমাদের ব্লগে বা বিজনেস সাইটে নানারকম ছবি আপ্লোড দেই। যা আমাদের ওয়েবসাইটকে সুন্দর করে তুলে।

Also read,

কিছু নিয়ম মেনে আকর্ষণীয় আর্টিকেল লিখুন

Website
Photo uploading

কিন্তু ছবির সাইজ বড় হওয়ার ফলে তা ওয়েবপেজ এর সাইজ বাড়িয়ে দেয়। যা সাইটকে ধীর গতির করে ফেলে।

তারজন্য আমাদের প্রয়োজন হয় ফটো কম্প্রেশন চালু করার। যা ছবির কোয়ালিটি নষ্ট না করে ছবির সাইজ কমিয়ে দেবে।

ছবি/ইমেজ এর সাইজ কম হলে তা খুব দ্রুত লোড হবে এর ফলে আমাদের ওয়েবসাইট লোডিং স্পীড বেড়ে যাবে।

ফ্রী ব্লগসাইট ব্যবহারকারীদের জন্য-

আপনি যদি ফ্রী ব্লগার সাইট ব্যবহার করেন, তাহলে আপনার উচিত ছবিগুলোর সাইজ নিজে নিজে ছোট করে আপ্লোড দেয়া।

অনলাইনে এরকম অনেক Website আছে যারা ফ্রী তেই আপনার ছবিগুলোর সাইজ কমিয়ে দেবে।

এরকম কিছু জনপ্রিয় ফটো কম্প্রেশর site হলো-

এ Site গুলো ব্যবহার করে ছবির সাইজ কম করে তারপর আপ্লোড দিবেন।

ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহারকারীদের জন্য-

যারা ওয়ার্ডপ্রেস ইউজ করেন তাদের জন্য ছবি কম্প্রেস করাটা অনেক সহজ। কিছু প্লাগিন ব্যবহার করলেই খুব সহজে অটোমেটিকভাবে ছবির সাইজ কমে যাবে।

এরকম কিছু ফ্রী জনপ্রিয় প্লাগিন হলো-

এ প্লাগইন গুলো ইন্সটল করে একটিভ করার পর আপনি যখনি কোন ইমেজ আপ্লোড করবেন তা অটোমেটিক ভাবে কম্প্রেজ হয়ে যাবে।

এগুলোতে মাসে প্রায় ৫০০টি পিকচার কম্প্রেজ করা যাবে। লিমিট বাড়াতে হলে আপনাকে টাকা পে করতে হবে।

তবে সাধারণত মাসে ৫০০ ইমেজ আমাদের জন্য একেবারে যথেষ্ট।

৫.। Image lazy load ইনেবল করুন।

পারসোনাল ব্লগ হোক বা কোন কমার্শিয়াল ওয়েবসাইট হোক লেখালেখি করার জন্য ও সাইটের সৌন্দর্য বাড়ানোর আমাদের বিভিন্ন ইমেজ/ছবি ইউজ করতে হয়।

যখন কোন ভিজিটর ওয়েবসাইটে ভিজিট করতে চায় তখন সবগুলো পিকচার/ভিডিও একসাথে লোড হয়। যার ফলে লোডিং টাইম বেশি নেয়।

Lazy load চালু করার ফলে ভিজিটর যে পেইজের যে স্থানে থাকে তখন শুধু সে ছবিগুলোই লোড হয়। সে যখন স্ক্রল করে নিচে আসে তখন নিচের ছবিগুলো লোড হয়।

lazy load সুবিধার জন্য ব্রাউজারকে একসাথে সবগুলো ছবি বা ভিডিও গুলো দেখানোর প্রয়োজন হয় না। বরং ভিজিটর সে ছবির কাছে যাবার পর তা লোড হয়।

আর এর ফলে আমাদের পেইজগুলোর সাইজ অনেকটা হালকা থাকে ও ওয়েবসাইট লোড হয় অত্যন্ত দ্রুত গতিতে।

Image lazy load চালু করবার জন্য আপনি ব্যবহার করতে পারেন- a3 lazy load প্লাগিনটি। আমি নিজেও এটা ইউজ করি।

আরোও কিছু ইমেজ lazy load করার প্লাগিন-

৬.। Java, CSS, html ফাইল ছোট করুন।

আমরা আমাদের ওয়েবসাইটের জন্য থিম ও বিভিন্ন প্লাগইন/টুলস ব্যবহার করি।

এ সব বিভিন্ন থিম ও প্লাগইন এর সাথে কিছু অতিরিক্ত css, java, html ফাইল দেয়া থাকে। এসব অতিরিক্ত ফাইলগুলো আমাদের ওয়েবসাইটকে ভারী করে তুলে।

Code
Coding

ফলে লোড হতে অনেকটা বাড়তি সময় নেয়। file compression চালু করলে অতিরিক্ত ফাইলগুলোকে তা মুছে দেয় আর Css, java বা html এর মতো ফাইলগুলোকে minify করে ছোট করে দেয়।

আর এ সুবিধার জন্যই আমাদের ওয়েবসাইট অনেক বেশি হালকা হয়ে যায় আর খুব দ্রুত গতির সাথে যে কোন ব্রাউজারে লোড হয়।

তো বুঝতেই পারছেন লোডিং স্পীড দ্রুত করার জন্য ফাইল কম্প্রেশনের প্রচুর ভূমিকা রয়েছে।
ফাইল কম্প্রেজ করার সবচেয়ে ভালো প্লগিন হচ্ছে-

ইন্সটল করে use করার পূর্বে অবশ্যই ইউটিউব দেখে নিবেন। যেহেতু এটা কোডিং এর সাথে জড়িত তাই সাবধানে সেটিং করার পরামর্শ আমি সবসময় দেবো।

সঠিকভাবে এ plugin টা আপনার Website এ চালু করে দিলে অতিরিক্ত ফাইলগুলোকে মুছে ও mimify করে আপনার ওয়েবসাইট লোডিং স্পীড দূর্দান্ত করে তুলবে।

৭.। Wp-rocket ইন্সটল করুন।

ওয়েব স্পীডের জন্য সবচেয়ে ভালো pluginটি হচ্ছে Wp-rocket.

সবার শেষে নিয়ে আসার কারণ হলো এটি সম্পূর্ণ পেইড ভার্শন। আপনাকে তাদের Website থেকে কিনে নিয়ে ব্যবহার করতে হবে।

যদি নতুন হয়ে থাকেন তাহলে উপরের পদ্ধতি গুলো ফলো করলে ১০০% গ্যারান্টি দিয়ে বলা যায় আপনার ওয়েবসাইট লোডিং স্পীড ফাস্ট হবেই হবে।

আর যদি মনে করেন, আপনি প্লাগিন কেনার সামর্থ্য রাখেন আর একের ভেতর সব পেতে চান তাহলে Wp-rocket হবে আপনার প্রথম চয়েজ।

Wp- rocket এমন একটি প্লাগইন যা আপনার ওয়েবসাইট কে অনেক ফাস্ট করে তুলে ও দ্রুত লোড হতে সাহায্য করে।

আইটি এক্সপার্টদের মতে ওয়েবসাইটের লোডিং স্পীড সর্বোচ্চ ৩সেকেন্ড হতে পারে। কোন ওয়েবসাইট লোড হতে যদি এর বেশি সময় নেয় তাহলে সেটা Slow loading site বা ধীরগতির সাইট হিসেবে গন্য হবে।

সবসময় চেষ্টা করতে হবে যেন খুব ফাস্ট লোড হয়। ২সেকেন্ড বা তারচেয়ে কম টাইমে লোড হলে খুব ভালো।

যারা বিগেইনার। যদি আপনি মাত্রই ব্লগিং বা ওয়েবসাইটের সাথে জড়িত হয়েছেন। তাহলে আপনি wp-rocket এর সুবিধার জন্য ভিন্ন ভিন্ন ভালো ফ্রি plugin গুলো ব্যবহার করতে পারেন।

যেগুলো সম্পর্কে উপরে আমি বিস্তারিত লেখেছি।

Wp-rocket এর বিশেষ সুবিধা-

  • Page catching

  • Static file compression

  • Lagy load images

  • Developer friendly

Developer friendly মানে হলো Wp-rocket প্লাগইনটি ব্যবহার করা খুব সহজ।

ক্লাইন্টের সবরকমের সুবিধার দিকে লক্ষ্য করে তৈরী করা হয়েছে। আপনি যে কোন সমস্যায় পরলে তাদের কাস্টমার সার্ভিসের সাথে যোগাযোগ করে সমাধান করতে পারবেন।

যে কোন সমস্যায় আমাদের এ ওয়েবসাইট টেকমশাই এ কমেন্ট করতে পারেন। আর ইউটিউবে Wp-rocket প্লাগইনটি নিয়ে ভিডিও পাবেন প্রচুর। সেখানে দেখে দেখে আপনি সুন্দরভাবে সেটাপ করে নিতে পারবেন।

ওয়েবসাইট লোডিং স্পীড এ হোন অভিজ্ঞ।

আমাদের শেষ কথাঃ

আমার ব্যাক্তিগত নিজের অভিজ্ঞতা ও সবার মতামত উপর ভিত্তি করে ওয়েবসাইট লোডিং স্পীড বাড়ানোর সবচেয়ে কার্যকরী টিপ্সগুলো দেয়ার চেষ্টা করেছি।

যাতে পরবর্তীতে কোনরকম ঝামেলায় পরতে না হয়।

ফলাফল কেমন হলো, অবশ্যই কমেন্টে জানাবেন।

টেক রিলেটেড যে কোন প্রব্লেমে আমাদের টেকমশাই আইটি এক্সপার্ট সাপোর্ট টিমের সাথে যোগাযোগ করুন।

This Post Has One Comment

Leave a Reply