গুগল এডসেন্স

আজ এ আর্টিকেলে আমি আপনাকে সহজে গুগল এডসেন্স পাওয়ার উপায় গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জানাবো।

আমরা যারা ব্লগিং এর সাথে জড়িত বা ব্লগিং করার কথা ভাবছি, তাদের কাছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় হচ্ছে Google adsense ।

কারণ এটা এমন একটি এডভার্টাইজিং কোম্পানি, যা আমাদেরকে এড দেখানোর জন্য সবচেয়ে বেশি টাকা প্রদান করে।

গুগল এডসেন্স পাওয়ার উপায়

আর গুগল এডসেন্স থেকে টাকা আয় করাও অনেক বেশি সহজ।

এডসেন্স অনেকের কাছেই একমাত্র মাধ্যমে যেখান থেকে তারা মাস শেষে হাজার থেকে লক্ষাধিক টাকা ইনকাম করে নিচ্ছে।

আপনার যদি একটি ওয়েবসাইট থাকে তাহলে গুগলের এড ওয়েবসাইটে বসিয়ে, আপনিও মাস শেষে ভালো পরিমাণে অনলাইনে ইনকাম করে নিতে পারেন।

তাই সবার প্রথমে আপনাকে জানতে হবে,

গুগল এডসেন্স একাউন্ট কি?

আরোও জানতে হবে,

গুগল এডসেন্স পাওয়ার উপায় গুলো কি কি?

গুগল এডসেন্স একাউন্ট কি?

(What is Google Adsense)

গুগল এডসেন্স হলো গুগলের এমন একটি প্লাটফরম, যেখানে লোকেরা তাদের বিজনেস এর জন্য এডস (বিজ্ঞাপন) দেখানোর জন্য গুগল কে টাকা প্রদান করে।

আর গুগল সে বিজ্ঞাপন কে ইন্টারনেটের বিভিন্ন মাধ্যমে (Blog, YouTube) ছড়িয়ে দেয়।

আর যাদের ওয়েবসাইটে বা ইউটিউব একাউন্টে গুগল এড দেখানোর কাজ দেয়, গুগল তাদের কে বিনিময়ে টাকা প্রদান করে।

গুগল এডসেন্স এর কাজ কি?

আমরা সকলেই জানি, বিজনেস এর জন্য মার্কেটিং বা প্রচার-প্রসার এর বিষয়টি অনেক গুরুত্বপূর্ণ ।

বিভিন্ন বড় বড় প্রতিষ্ঠান ও বিজনেস কোম্পানি গুলো তাদের মার্কেটিং করার জন্য গুগলকে টাকা প্রদান করে।

এই টাকা টা তারা গুগলকে দেয় মূলত – “তাদের লিংকে ঠিক কি পরিমাণে ক্লিক হচ্ছে” এর উপর ভিত্তি করে।

গুগল প্রতি ক্লিকে যা ইনকাম করে, তার ৫১% – ৬৮% পাব্লিশারদের কে প্রদান করে।

এর মানে কেউ যখন আমার ব্লগে থাকা কোন ব্লগের এডস এ ক্লিক করে তখন আমি এডস থেকে পাই ৫১% -৬৮%।

আর বাকী টাকাটা গুগল পেয়ে থাকে।

Google adsense বিজ্ঞাপন দেখানোর জন্য ২ রকমের লোকের সাথে কাজ করে।

1. Advertiser : যারা তাদের বিজনেস এর বিজ্ঞাপন দেখানোর জন্য গুগলকে টাকা দেয়।

2. Publisher: যারা গুগলের এডস গুলোকে তাদের ওয়েবসাইট বা ইউটিউবে প্রচার করে।

Bluehost কোম্পানির বিজ্ঞাপন যদি আমাদের ব্লগে দেখায়। তাহলে Bluehost হচ্ছে Advertiser- যারা গুগলকে বিজ্ঞাপনের জন্য টাকা দিচ্ছে।

আর আমাদের ব্লগ বা আমরা হচ্ছি Publisher. যা গুগল থেকে টাকা পাচ্ছে।

গুগল এডসেন্স পাওয়ার উপায়- (How to get Google Adsense in bangla)

একটা কথা মনে রাখবেন, গুগল এর মতো এতো বড় একটি কোম্পানি যে কাউকেই এডসেন্স দিয়ে দিবে না।

তারজন্য ওয়েবসাইট এর পেছনে আপনাকে একটু পরিশ্রম অবশ্যই করতে হবে।

গুগল এডসেন্স পাওয়ার উপায় গুলো সম্পর্কে আপনাকে জানতে হবে।

তাহলেই গুগলে এডসেন্স এর জন্য আবেদন করে, আপনি এপ্রুভাল পাবেন।

গুগলের কাছে এডসেন্স এর আবেদন করেছে, আর গুগল রিজেক্ট করে দিয়েছে। এরকম লোকের সংখ্যাও কম নয়।

তবে আমার কাছে ব্যপার টা অনেক সহজ লাগে।

আমি ওয়েবসাইট শুরু করার ৩মাসের মধ্যেই এডসেন্স এ আবেদন করেছি।

আর ২৪ঘন্টার মধ্যে তারা আমার এ ওয়েবসাইট টেকমশাই কে এডসেন্স এর এডস দেখানোর জন্য উপযুক্ত ঘোষণা করে।

আর তখন থেকেই আমার অনলাইনে ইনকাম শুরু হয়ে যায়।

আপনিও যদি চান যে, গুগল আপনাকে রিজেক্ট না করে সহজেই এডসেন্স দিয়ে দিক- তাহলে কিছু স্টেপ আপনাকে ফলো করতে হবে।

তাহলে খুব সহজেই আপনি এপ্রুভাল পেয়ে যাবেন আর ব্লগ থেকে ভালো পরিমাণে ইনকাম করতে পারবেন।

এডসেন্স পেতে করণীয় কি?

আপনি যদি ব্লগিং এর ব্যাপারে সিরিয়াস হয়ে থাকেন আর অনলাইনে ইনকাম করতে আগ্রহী- তাহলে এডসেন্স এর নিয়ম গুলো আপনার মানতেই হবে।

তাহলেই আপনার ওয়েবসাইট দিন দিন যত বড় হবে ততবেশি এর মূল্য বাড়তে থাকবে।

আমি খালিদ ফারহান কে চিনি, যিনি তার গল্ফ বিষয় নিয়ে লেখালেখি করা একটি ওয়েবসাইট কে প্রায় ১৪৫০০$ এ বিক্রি করেছিলেন।

যা বাংলাদেশি টাকায় ১,১৬০,০০০ (এগারো লক্ষ ষাট হাজার টাকা) মাত্র।
যা তিনি ইনকাম করেন দেড় থেকে দুই বছরের মাথায়।

আপনার কাছে এটা অবিশ্বাস্য মনে হলেও অনলাইন দুনিয়ায় এটা সম্ভব।

তাই সবসময় নিজের কাজের কোয়ালিটির উপর খেয়াল রাখবেন। দাম নির্ভর করে কোয়ালিটির উপর।

  • সহজ ও সুন্দর ডিজাইন করুন।

আপনার ওয়েবসাইট এর ডিজাইন হবে সবসময় সহজ ও সুন্দর।

লেখা পড়তে বা বুঝতে পাঠকের যেন কোন প্রব্লেম না হয়, সে দিকে সবচেয়ে বেশি খেয়াল রাখতে হবে।

উপরের মেনু গুলো হবে ফাঁকা ফাঁকা করে।
আপনার ওয়েবসাইট দেখতে যত সুন্দর হবে ও সহজ হবে পাঠকেরা ততবেশি আপনার ব্লগে পড়তে আসবে।

তাই ভালো ডোমেইন হোস্টিং কেনার পর, ওয়েবসাইট কে সুন্দরভাবে ডিজাইন করুন।
আপনি যদি না করতে পারেন, তাহলে আমাদের টিমের সাথে যোগাযোগ করুন।

  • কিছু গুরুত্বপূর্ণ পেইজ অবশ্যই তৈরী করুন।

আপনি যখন গুগলের কাছে এডসেন্স এর আবেদন করেন, তখন গুগল আপনার ওয়েবসাইট রিভিউ করে।

তারা পুরো ওয়েবসাইট ভিজিট করে ও দেখে আপনার ওয়েবসাইট এডসেন্স এর জন্য উপযুক্ত কি না।

এক্সপার্ট দের মতে, এডসেন্স পাওয়ার জন্য- আপনার ব্লগে ৪টি পেজ তৈরী করা অত্যন্ত জরুরী ।

  1. Privacy policy
  2. Disclaimer
  3. Contact us
  4. About us

তাই ব্লগ তৈরী করার পর, এই ৪টি গুরুত্বপূর্ণ পেজ অবশ্যই তৈরী করে নিবেন।
তাহলে এডসেন্স পেতে কোন রকমের সমস্যা হবে না।

এ পেজগুলো কিভাবে তৈরী করা যায়, তার জানার জন্য- আপনি আমাদের পেজ গুলো থেকে মুটামুটি একটা ধারণা নিতে পারেন।

  • অন্তত ২৫টি কোয়ালিটিসম্পন্ন আর্টিকেল লিখুন।

এখানে এসেই অনেকে আটকে যায়। তারা ব্লগ তো শুরু করে ঠিক ই, কিন্তু কিছুদিন পর ই লেখার আগ্রহ হারিয়ে ফেলে।

লেখার উপরে আর তেমন গুরুত্ব দেন না।
যার কারনে তারা ব্লগিং ক্যারিয়ারে হোন ব্যার্থ।

দেখুন, আপনি যদি ব্লগ শুরু করেন নিতান্তই শখের বশে। তাহলে আগ্রহ হারানো মানে এ কাজে আসলেই আপনার মন নেই।

আর যদি আপনি ব্লগিং কে দেখেন বিজনেস হিসেবে। আপনি যদি চান যে- ব্লগ থেকে অনলাইনে ইনকাম করবেন, গুগল এডসেন্স থেকে টাকা আয় করবেন-

তাহলে, একটু পরিশ্রম তো আপনাকে করতেই হবে।
পরিশ্রম ছাড়া কিছুই তো হয় না।

তবে হ্যাঁ, আপনি যদি ব্লগিং কে অনলাইন ইনকাম এর সেরা উপায় হিসেবে নেন, আর লিখতে বিরক্ত হোন- তাহলে আপনি লেখা কিনে নিতে পারেন।

বা আপনার ব্লগে লেখক নিযুক্ত করে টিম ওয়ার্ক করতে পারেন।

তাছাড়া ব্লগ থেকে অনলাইনে ইনকামের সেরা উপায় আরোও রয়েছে।

এতে কন্টেন্ট কেনার জন্য আপনাকে কিছু টাকা অবশ্যই ইনভেস্ট করতে হবে।

তবে সবসময় মনে রাখবেন, ব্লগে কোয়ালিটিসম্পন্ন আর্টিকেল পাব্লিশ করুন ।

পাঠকেরা আপনার লেখা পড়ে যেন অনেক কিছু শিখতে পারে, তারা যে জন্য লেখা পড়ছে- তা যেন তারা আর্টিকেলে পেয়ে যায়।

তাহলে একটু সময় লাগলেও আপনার ব্লগে দিনদিন ভিজিটর বাড়তে থাকবে।
আর ভিজিটর বাড়ার সাথে সাথে আপনার অনলাইন ইনকাম এর পরিমাণ ও বাড়তে থাকবে।

  • কপি করা থেকে অবশ্যই বিরত থাকুন।

গুগল এডসেন্স কপি করা কন্টেন্ট এ কখনোই এডসেন্স এপ্রুভাল দেয় না।

আর কপি করে লেখা পাব্লিশ করলে সে লেখা সার্চ ইঞ্জিন গুলোতে র‍্যাংক ও করে না।

তাই লেখা হোক বা ছবি হোক কপি করবেন না।

এটা SEO এর ক্ষেত্রে ও অনেক বড় ভূমিকা পালন করে।

তাছাড়া কপি করে আর্টিকেল পাব্লিশ করা কপিরাইট আইনে নিষিদ্ধ।

ছবি যুক্ত করতে চাইলে আপনি pixabay এর কপিরাইট ফ্রি ছবি গুলো ইউজ করতে পারেন।

যার থেকে আপনি লেখা কপি করলেন, সে চাইলে আপনার লেখা মুছে ফেলার জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করতে পারে।

আপনার ওয়েবসাইটের জন্য এটা অনেক ক্ষতিকর ।

আপনার ব্লগে কপি করা কোন লেখা থাকলে এডসেন্স বারবার তা রিজেক্ট করে দিবে।
এডসেন্স এর জন্য এপ্রুভাল দিবে না।

তাই কপি করার চিন্তা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলুন।

আর নিজেরা কোয়ালিটিসম্পন্ন আর্টিকেল লিখে ব্লগে পাব্লিশ করুন।

  • Adsense এর সমস্ত নীতিমালা মেনে চলুন।

১৮+, নিষিদ্ধ, নুডিটি বা সেক্সুয়াল কিছু ব্লগ ওয়েবসাইটে লিখবেন না।

গুগল থেকে এগুলো সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।
এডসেন্স এর সমস্ত নীতিমালা মেনে চলুন।

এডসেন্স এপ্রুভাল পাওয়ার জন্য আমি এ বিষয়গুলো মেনে চলেছি আর এডসেন্স থেকে এপ্রুভড হয়েছি।

Google Adsense পেতে হলে আপনাকে এ কয়টি বিষয় অবশ্যই মেনে চলতে হবে।

তারপরও, গুগল প্রতিনিয়ত তাদের রুলস ও রেগুলেশন গুলো পরিবর্তন করতে থাকে।

তাই ছোটখাটো সবগুলো নিয়মনীতি সম্পর্কে জানতে Adsense rules & regulation সম্পর্কে আপডেট থাকুন সবসময়।

শেষ কথা-

Google adsense পেতে হলে যে বিষয়গুলো অত্যন্ত জরুরী, সে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো আপনাদের সাথে শেয়ার করেছি।

আশা করি, গুগল এডসেন্স পাওয়ার উপায় গুলো সম্পর্কে আপনি বিস্তারিত জানতে পেরেছেন।

অনেকেই এডসেন্সে আবেদন করার পর রিজেক্ট হয়ে যায়।

আর একবার রিজেক্ট হলে, পরের বার আবেদন করতে ও এপ্রুভাল পেতে সমস্যার সৃষ্টি হয়।

এ আর্টিকেলটি পড়ে আপনি যদি আপনার ব্লগে তা প্রয়োগ করেন, তাহলে Adsense থেকে এপ্রুভাল অবশ্যই আপনি পাবেন।

By Techmoshai Amin

টেকনোলজি সম্পর্কে পড়তে ভালোবাসি, লিখতে ভালোবাসি।

4 thoughts on “দ্রুত গুগল এডসেন্স পাওয়ার উপায়। (Best-tips)”
  1. আমার ২০টা পোস্ট আছে যেগুলো ১০০০+ শব্দ ও সবগুলো ইনডেক্স হওয়া। এপ্লাই করতে পারি?
    মোট পোস্ট ২৭টা। ৭টা কোন ভাবেই ইনডেক্স হচ্ছে না।

    1. অনেকেই পেয়ে যায়। তবে আপনার উচিত হবে, কমপক্ষে আরোও ৫টি ভালো পোস্ট লিখে তারপর এপ্লাই করা।
      আর পোস্টে যে সকল বিষয় গুলোর কথা বলা হয়েছে- সেসব ঠিকঠাক আছে কি না, সেটা অবশ্যই চেক করে নিবেন।
      যাতে কোনভাবেই রিজেক্ট না করতে পারে।
      ৭টা পোস্ট আপনার ইনডেক্স হচ্ছে না কেন?

      1. কেনো যে হচ্ছে না জানি না😥
        ১০০০+ ওয়ার্ড সাথে ইউনিক ও
        তারপরেও হচ্ছে না!
        এডসেন্সে এপ্লাই করা নিয়ে কিছু প্রশ্ন ছিলো ফেসবুকে নক দিচ্ছি
        একটু রিপ্লাই দিয়েন
        Id name – adrita

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *