আমরা যারা ইন্টারনেটের সাথে পরিচিত, তারা প্রায় সবাই একটা সময় পর অনলাইনে ইনকাম এর বিষয়ে আগ্রহী হোন।

সেটা ব্লগ থেকে অনলাইনে ইনকাম হোক বা অন্য কোন উপায়ে।

এটা পড়ুন,

এমনিতে অনলাইনে আয় করার জন্য জন্য অনেক উপায় রয়েছে। তবে ব্লগ থেকে আয় করা তার মধ্যে অন্যতম।

ব্লগ থেকে অনলাইনে ইনকাম
“Earn money by blogging”

আমরা যখন জানতে পারি যে, ঘরে বসেই আমরা হাজার থেকে লক্ষাধিক টাকা ইনকাম করতে পারি- তখন এটার প্রতি আগ্রহ আসাটাই স্বাভাবিক।

তো আজ আমরা কথা বলবো- ব্লগ বানিয়ে আমরা কিভাবে ক্যারিয়ারে সফল হতে পারি ও ব্লগ থেকে অনালাইনে ইনকাম সহজেই কিভাবে আমরা করতে পারি। সে প্রসঙ্গে।
তো চলুন শুরু করা যাক-

ব্লগ থেকে অনলাইনে ইনকাম কিভাবে করবেন?

বর্তমান সময়ে ব্লগ থেকে অনলাইনে ইনকাম করার জন্য অনেক অনেক উপায় রয়েছে।

সবচেয়ে ভালো ও তুলনামূলক সহজে টাকা ইনকাম করা যায় এমন কিছু উপায় নিয়ে আজ আমরা বিস্তারিত কথা বলবো-

গুগল এডসেন্স (How to earn by Google Adsense in bangla)

যারা ব্লগার, যে কোন বিষয়ে টুকটাক লেখালেখি করতে পারেন- তাদের জন্য অনলাইনে আয় করার জন্য সবচেয়ে সহজ ও জনপ্রিয় মাধ্যম হলো Google Adsense.

বর্তমান সময়ে শুধুমাত্র গুগল এডসেন্স ব্যবহার করেই আমার মতো ব্লগাররা হাজার হাজার টাকা অনলাইনে খুব সহজেই ইনকাম করে নিচ্ছেন।

গুগল এডসেন্স কি? (What is Google Adsense)

গুগল এডসেন্স হলো একটি এডভার্টাইজিং বা বিজ্ঞাপন সংস্থা। লোকেরা তাদের বিজনেস এর বিজ্ঞাপন তৈরী করে গুগল এর কাছে দেয়, আর গুগল তা অনলাইন দুনিয়ায় প্রচার করে দেয়।
বিনিময়ে Google কে প্রচার-প্রচারণার জন্য টাকা দিতে হয়।

গুগল এডসেন্স থেকে কিভাবে আয় করবেন?

Google Adsense থেকে আয় করতে হলে, আপনার অবশ্যই একটি ওয়েবসাইট থাকতে হবে। প্রথমে আপনি গুগলের ফ্রী ব্লগার ওয়েবসাইট সুবিধাটি ব্যবহার করতে পারেন।

এর জন্য আপনাকে একটি টাকাও খরচ করতে হবে না।

তারপর ধীরে ধীরে ভালো ডোমেইন হোস্টিং কিনে তা বড় করে নিতে পারেন।

ওয়েবসাইট খোলার পর আপনি আপনার পছন্দনীয় আর লোকেরা যে বিষয়ে অনলাইনে অনেক সার্চ করে তা নিয়ে লেখা শুরু করে দিবেন।

আর আপনার ব্লগ ওয়েবসাইটে যখন ২৫-৩০ টা লেখা হয়ে যাবে এবং ওয়েবসাইট একটু পুরাতন হবে, তখন আপনি গুগল এডসেন্স এর জন্য আবেদন করতে পারবেন।

আপনার লেখা গুলো যদি বড় হয় (১০০০+ ওয়ার্ড) আর তা যদি কোন জায়গা থেকে কপি না করা হয়, তাহলে আপনি অবশ্যই সহজেই এডসেন্স এপ্রুভাল পেয়ে যাবেন।

আপনি তখন এডস বা বিজ্ঞাপন লাগাতে পারবেন আর আপনার ব্লগ থেকে অনলাইনে ইনকাম শুরু হয়ে যাবে।

আপনি যে লেখাটি পড়ছেন, তার বিভিন্ন স্থানে হয়তো বিজ্ঞাপন দেখতে পাচ্ছেন। এগুলো মূলত গুগল এডসেন্স এর ই বিজ্ঞাপন ।

আমি আমার ওয়েবসাইট শুরু করার ৩মাসের মধ্যেই গুগল থেকে এডসেন্স এপ্রুভাল পেয়ে যাই আর অনলাইনে ইনকাম করা শুরু করি।

এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate Marketing)

এফিলিয়েট মার্কেটিং হলো ব্লগ থেকে অনলাইনে টাকা ইনকাম করার সেরা উপায় গুলোর অন্যতম একটি উপায়।

Affiliate marketing এর মাধ্যমে আপনি আনলিমিটেড অনলাইনে ইনকাম করতে পারবেন।

এখন যারা এফিলিয়েট প্রোগ্রাম এর সাথে যুক্ত তারা লক্ষ লক্ষ টাকা অনলাইনে আয় করছেন, তাও শুধুমাত্র ঘরে বসেই।

এফিলিয়েট মার্কেটিং যারা করেন, তারা সাধারণত তাদের উপার্জন শেয়ার করেন না, তবে অনেকেই করেন।
আপনি চাইলে ইউটিউব সার্চ করে দেখতে পারেন। আপনার কাছে ক্লিয়ার হয়ে যাবে।

এখন আপনার মনে প্রশ্ন আসতে পারে,

এফিলিয়েট মার্কেটিং কি?

বা

এফিলিয়েট মার্কেটিং থেকে কিভাবে অনলাইনে আয় করা যায়?

Affiliate marketing কি?

এফিলিয়েট মার্কেটিং হলো অন্য কারোও কোন প্রোডাক্ট কে বিক্রি করে দেয়া, ও তার একটা কমিশন নেয়া।

মনে করুন- আপনি কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কোন প্রোডাক্ট এর বিষয়ে লিখলেন। আর নিচে সে প্রোডাক্ট কেনার লিংক দিয়ে দিলেন।

লোকেরা প্রোডাক্ট টি দেখে ও পড়ে তা কিনে নিল। আর এর বিনিময়ে সে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান টি ঐ প্রোডাক্টের কিছু কমিশন আপনাকে দিয়ে দিল।

এটাকেই বলা হয়, Affiliate marketing.

এফিলিয়েট মার্কেটিং থেকে কিভাবে টাকা আয় করা যায়?

(How to earn money by affiliate marketing)

এফিলিয়েট মার্কেটিং কি ও কিভাবে কাজ করে সে বিষয়ে আশা করি বুঝতে পেরেছেন।

এখন চলুন জেনে নেই, “এফিলিয়েট মার্কেটিং থেকে কিভাবে অনলাইনে টাকা আয় করা যায়?”

বিশ্বে এখন প্রায় বড় বড় সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ই এফিলিয়েট সুবিধা দিয়ে থাকে। তবে সবচেয়ে বেশি পরিমাণে কমিশন দেয় Amazon.

এমাজন এর Affiliate programme এ যুক্ত হওয়ার জন্য, আপনি তাদের ওয়েবসাইটে যাবেন। আর সবার নিচে Affiliate programme এর অপশন দেখতে পাবেন।

সেখান থেকে আপনি আপনার নাম, ঠিকানা ও জিমেইল আইডি দিয়ে একটি একাউন্ট করলেই, আপনি এমাজনের এফিলিয়েট প্রোগ্রামের সাথে যুক্ত হয়ে যাবেন।

তাদের সাথে যুক্ত হবার পর পর ই আপনার একাউন্ট থেকে যে পন্যের উপর ই ক্লিক করবেন, আপনি একটি এফিলিয়েট লিংক সেখানে দেখতে পাবেন।

এখন আপনি প্রোডাক্টির ছবিসহ কিছু তথ্য দিয়ে এ লিংক টি আপনার ইন্সট্রাগ্রাম, ফেসবুক বা ওয়েবসাইট থাকলে ওয়েবসাইটে শেয়ার করে দিতে পারেন।

যে কোন লোক ঐ লিংক থেকে প্রোডাক্ট কিনবে, আপনি তার থেকে একটি ভালো কমিশন পেয়ে যাবেন।

এর অনেক বড় একটি সুবিধা হলো- আপনার দেয়া লিংক এ প্রবেশ করে সে যদি ঐ পণ্যটি না কিনে অন্য কোন পন্য ও কিনে, আপনি কমিশন পাবেন।

এরকম ভাবে দিনে দুই থেকে তিনটা সেল হলেই, আপনি মাস শেষে ভালো একটা ইনকাম দেখতে পাবেন।

আরেকটি বিশেষ সুবিধা হলো- আপনার ওয়েবসাইট যদি নাও থেকে থাকে তবুও আপনি এফিলিয়েট এর সাথে সম্পূর্ণ ফ্রীতে যুক্ত হতে পারবেন।

এর জন্য আপনাকে কোন প্রকার পে করতে হবে না।

Product Selling ( পণ্য বিক্রি)

ব্যবসার সাফল্যের জন্য অনেক বড় একটি বিষয় হলো মার্কেটিং। আর এখন লোকেরা অনলাইনে বা সোশ্যাল মিডিয়া গুলোতে অনেক বেশি সময় কাটায়।

তাই ছোট হোক বা বড়, ব্যবসার সাফল্যের জন্য ডিজিটাল মার্কেটিং আমাদের জন্য অবশ্যই করণীয় একটি বিষয়।

আমাদের নিজেদের যদি কোন ব্লগ ওয়েবসাইট থাকে। তাহলে মার্কেটিং করা ও প্রোডাক্ট সেল করা আমাদের অনেক সহজ হয়ে যায়।

মনে করুন, আপনার একটি কম্পিউটারের দোকান রয়েছে। এখন আপনি আপনার ব্লগে কম্পিউটারের পরিচিতি ও বিভিন্ন পার্টস নিয়ে লিখতে পারেন।

আর তাতে আপনার শপের ঠিকানা বা ওয়েবসাইট থাকলে তার লিংক দিয়ে দিতে পারেন।

এতে এডসেন্স এর বিজ্ঞাপন লাগিয়ে আপনি যেমন ব্লগ থেকে অনলাইনে ইনকাম করতে পারেন, আবার আপনার শপের বিক্রির পরিমাণ অনেক বেশি বাড়িয়ে নিতে পারেন ।

আর আপনার যদি কোন শপ না থাকে-
তাহলে আপনি যে বিষয়ে দক্ষ সে বিষয়ে ই-বুক বা ভিডিও কোর্স তৈরি করে বিক্রি করতে পারেন।

আপনি হয়তো, ইংরেজিতে অনেক বেশি পারদর্শী। তো ইংরেজি শিক্ষার ই-বই বানিয়ে বা ভিডিও কোর্স তৈরী করতে পারেন।

অথবা যদি আপনি কোন প্রোগ্রামিং ভাষা জানেন সে সম্পর্কে অথবা ব্লগিং, ওয়ার্ডপ্রেস ইত্যাদির অনলাইন কোর্স আপনি সহজেই বিক্রি করতে পারেন।

এভাবেই আপনার যে বিষয়ে দক্ষতা আছে তার ডিজিটাল প্রোডাক্ট বানিয়ে, বা নিজের শপের বিভিন্ন প্রোডাক্ট নিয়ে লিখে আপনি অনলাইন ক্যারিয়ারে সফল হতে পারেন।

স্পনসর পোস্ট (Sponsor post)

ব্লগ থেকে অনলাইনে ইনকাম করার আরেকটা উপায় হচ্ছে স্পনসর পোস্ট।

আপনার ব্লগ ওয়েবসাইট যখন একটু বড় হবে ও হাজার হাজার ভিজিটর আপনার ওয়েবসাইট এ আসবে।

তখন বিভিন্ন কোম্পানি তাদের প্রোডাক্ট নিয়ে আপনার ওয়েবসাইটে লিখতে বলবে, আর এর বিনিময়ে তারা আপনাকে টাকা প্রদান করবে।

মনে করুন, আপনার ব্লগ ওয়েবসাইটটি প্রযুক্তি বিষয়ে। আপনি নিত্যনতুন প্রযুক্তি সম্পর্কে লিখে থাকেন। তো কোন ইলেকট্রনিকস ব্যবসা তাদের প্রোডাক্ট সম্পর্কে লিখতে বলবে আর তাদের ওয়েবসাইটের লিংক দিতে বলবে।

এতে তাদের হয়ে আপনি মার্কেটিং করলেন, আর এর বিনিময়ে তারা আপনাকে টাকা পে করলো।

আর এভাবেই আপনার ওয়েবসাইট যদি হয় হেলথ ও ফিটনেস নিয়ে তাহলে কোন ঔষধ কোম্পানি আপনাকে অফার করতে পারে।

তবে মনে রাখবেন , স্পনসর পোস্টের মাধ্যমে ব্লগ থেকে অনলাইনে আয় করার জন্য আপনার ওয়েবসাইট এ বেশী ট্রাফিক (ভিজিটর) এর প্রয়োজন হবে।

তাই সবসময় খেয়াল রাখবেন কিভাবে ওয়েবসাইটে বেশী পরিমাণে ভিজিটর নিয়ে আসা যায়?

আশা করি, ব্লগ থেকে অনলাইনে ইনকাম কিভাবে করবেন তা বুঝতে পেরেছেন।

By Techmoshai Amin

টেকনোলজি সম্পর্কে পড়তে ভালোবাসি, লিখতে ভালোবাসি।

2 thoughts on “ব্লগ থেকে অনলাইনে ইনকাম করার সেরা উপায়- (কার্যকরী টিপ্স)”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *